আজ বৃহস্পতিবার| ১লা অক্টোবর, ২০২০ ইং| ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
আজ বৃহস্পতিবার | ১লা অক্টোবর, ২০২০ ইং

সুরেশ্বর বাধ প্রকল্প রক্ষায় জরুরী ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী

রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০ | ৫:১০ অপরাহ্ণ | 84 বার

সুরেশ্বর বাধ প্রকল্প রক্ষায় জরুরী ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী

সুরেশ্বর বাধ প্রকল্প রক্ষায় জরুরী ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক

শরীয়তপুর নড়িয়া উপজেলা সুরেশ্বর দরবার শরীফ বাধ প্রকল্প রক্ষায় জরুরী ভিত্তিতে ভাঙ্গন রোধে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এর নির্দেশেগত ১৬ ই জুলাই হতে জরুরী ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ডাম্পিং ব্লক জিইউটিউব ৫৬হাজার জিওব্যাগ ডাম্পিং করা হয় গত ২১জুলাই হঠাৎ ৩শত মিটারের মধ্যে কিছু অংশ ভাঙ্গনের সৃষ্টি হয়। এ বিষয়ে ধারণা করা হয়জে পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে নদীতে প্রচুর স্রোতের সৃষ্টি হয় রং বন্যায় প্লাবিত হয় নদী তীরবর্তী এলাকা। নদীর পানি কমতে শুরু করলে কিছু জায়গায় ভাঙ্গনের দেখা দেয়। এ বিষয়ে তাৎক্ষণিক পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম পানি উন্নয়ন বোর্ডকে জরুরী ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন এবং জিওব্যাগ ডাম্পিং এর কারণে ভাঙ্গনের আশঙ্কামুক্ত বলে জানিয়েছেন শরীয়তপুর জেলা প্রাণি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা আব্দুল হেকিম। ঠিকাদার ইমান হোসেন দেওয়ান, আবুল হোসেন দেওয়ান, ও জেলা পরিষদের সদস্য আলমগীর হোসেন বলেন সুরেশ্বর দরবার শরীফ বেরিবাদে হঠাৎ ২১শে জুলাই ২০২০ পদ্মা নদীর পানি বৃদ্ধির কারণে প্রচণ্ড স্রোতে সামান্য কিছু জায়গা ভাঙ্গন সৃষ্টি হয় খবরটি জানার পর সাথে সাথে শরীয়তপুর ২আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামীম এর নির্দেশে শরীয়তপুর জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড জিও ব্যাগ ডাম্পিং করে, ব্লক জিউটিউব ডাম্পিং এর মাধ্যমে ভাঙ্গন রোধ করার চেষ্টা চালানো হয়।  এতে করে বেরিবাধ ভাঙ্গনের আতঙ্ক থেকে আশঙ্কামুক্ত হয়।সুরেশ্বর দরবার শরীফের মোতাওয়াল্লী কামাল নুরী সাংবাদিকদের বলেন বন্যাওনদীর পানি বৃদ্ধির সাথে সাথে সুরেশ্বর দরবার শরীফে বেরিবাধে ভাঙ্গন সুরু হয় প্রায় ১৬০ ফুট গভীরে স্রোত প্রবাহিত হচ্ছে, এতে করে ব্যাপক ভাঙ্গনের আতঙ্কে ছিল সুরেশ্বর বাসি। গত ২১জুলাই দরবার শরীফ বেরিবাধের ভাঙ্গন রোধে কাজ শুরু করায় এলার মানুষ স্বস্তিতে রয়েছেন।  ভাঙ্গন কবলিত বিভিন্ন মানুষের মতামত নদী ভাঙ্গন রোধে নদী তীরবর্তী মানুষেরা গত ১৮/১৯ সনে জাজিরা নড়িয়া মুক্তারেরচর বাশতলা, মুলফৎগঞ্জ, কেদারপুর, সুরেশ্বর নদী ভাঙ্গার কবলে পড়ে রাস্তাঘাট বাজার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভবন ক্লিনিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সহ হাজার হাজার বাড়িঘর বিলীন হয়ে গেছে পানি সম্পদ উপমন্ত্রী বেরি বাধ দেয়ার ফলে হাজার হাজার বসতবাড়িঘর ফসলি জমি  নদী ভাঙ্গনের হাত থেকে বেঁচে গেছে। তারা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম এমপি মহোদয় এর কাছে কৃতজ্ঞতা জানান জাজিরা নড়িয়া কেদারপুর সুরেশ্বর দরবার শরীফ সহ ভাঙ্গন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

It's only fair to share...Share on FacebookShare on Google+Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn

সর্বশেষ সংবাদ
ফেইসবুক পাতা